কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ইয়াছিন টেকনোলজির বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: ৪:৩৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২১

কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ইয়াছিন টেকনোলজির বিরুদ্ধে

ডেস্ক রিপোর্টঃ মাও.খছরুজ্জামান(বাংলার বারুদ ২৪)

অনলাইন প্লাটফর্মে মোবাইল মাধ্যমে ইয়াসিন টেকনোলজি নামে এপ্স বাহির করে ডিজিটাল রিচার্জের প্রতারণার ফাঁদ পেতে সারা বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য হাউস মেন, ডিজিএম, ডিলার একাউন্ট খুলে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে ইয়াসিন টেকনোলজির চেয়ারম্যান ইয়াছিন আরাফাত তুহিন ( জেলা ঝিনাইদহ. থানা হরিনাকুন্ড. গ্রাম চর পাড়া বাজারে তার দোকান) তার সহকর্মী আব্দুল্লাহ আল মামুন সহ সাবকর্মীদের বিরুদ্ধে।

তাদের ব্যবসার ধরন ছিল তারা প্রথমে তাদের থেকে হাউজ হিসেবে সদস্য নিয়োগ দিত এভাবে ডিজিএম ডিলার রিটেলার বানানোর অপশন চালু করে যার মাধ্যমে প্রত্যেকটি একাউন্ট করতে সদস্য থেকে ৫০০০,২০০০,১৫০০,৫০০,২০০ ক্রমান্বয়ে টাকা নিত।এর পর তারা সপ্তাহে কয়েকদিন বিভিন্ন ড্রাইভ কম রেটে ক্রয় করে এপ্স এ একটা রেট ধরে দিত যা একাউন্ট কারীরা সাধারণ কাস্টমার এর কাছে সেল করত। এভাবে একাউন্টকারীরা ইয়াসিন টেকনোলজির মালিক থেকে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার লেনদেন করত।

সারা বাংলাদেশে ৯৩ জন DGM থেকে কোটি টাকার উপরে হাতিয়ে নিয়েছেন।একেকজিন ডিজিএম দের আন্ডারে শতাধিক একাউন্ট ছিল।

চট্রগ্রাম এর কক্সবাজার থেকে জসিম উদ্দিন নামক এক ডিলার জানান তিনি ১ম এ ইয়াসিন টেকনোলজির ডিলার একাউন্ট নেন এক সময় তাকে ডিজিএম একাউন্ট খোলে দেওয়া হয়। এভাবে এক সময় থেকে তার কাছ থেকে ইয়াসিন টেকনোলজির ইয়াসিন আরাফাত নামক অভিযুক্ত ব্যক্তি বিভিন্ন ড্রাইভ পাইকারি রেটে কিনে নিতেন এবং তা বাড়তি রেট এ এপ্স এ লাগিয়ে একাউন্টদারীরদের মাধ্যমে সেল করিয়ে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করতেন।তার থেকে কোন কোন সময় ড্রাইভ দিনের বেলা নিত রাতের বেলা টাকা পরিশোধ করত। সাম্প্রতিক এপ্স বন্ধ হওয়ার কিছুদিন আগে তার কাছ থেকে ড্রাইব নিয়ে সেল করে ৫০ হাজার টাকার বেশি লেনদেন করে এছাড়া ইনবেস্ট সহ তার পাওনা লাখের উপরে। কিন্তু নানা অজুহাত দেখিয়ে নাকি তার টাকা দেওয়ার নাম নেই।
মুহি উদ্দিন নামক একজনের প্রায় ৯০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।এছাড়াও ইয়াসিন টেকনোলজিতে একাউন্টদারী অনেক সদস্যদের কাছে জানা যায় তারা তাদের একাউন্ট এ হাজার হাজার টাকা লোড নিয়ে রাখছে আর সেই টাকা বিকাশে/ব্যাংক একাউন্ট / বা নগদে ইয়াসিন টেকনোলজির মালিকের কাছে গেছে।

সাম্প্রতিক গেল ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে এপ্স এর আপডেট করার কথা বলে সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখেন পরে একেরপর এক তারিখ দিলেও এপ্স চালু হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই দেখে সদস্যরা বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করতে চাইলেও তাদের কোন সাড়া মেলেনি কল রিসিব না করে অফ করে রাখা হয়

এব‍্যাপারে ইয়াছিনের নিজ জেলা ঝিনাইদহে খোঁজ নেওয়া হলেও কোন হদিস পাওয়া যায় নি।।

এহেন পরিস্থিতিতে ভুক্তভোগী একাউন্টধারীরা হাজার হাজার টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে মাথায়। এই মূহুর্তে আইনের কাছে সবার জুড় দাবি ইয়াসিন টেকনোলজির সাথে জড়িত সকলকে আইনের আওতাধীন এনে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করে গ্রাহকদের টাকা ফিরিয়ে দেওয়া হোক।

এই সংবাদটি 148 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ