সুনামগঞ্জ পৌর শহরেই শুধু ৫শ’র বেশী করোনা রোগী

প্রকাশিত: ১১:১৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১২, ২০২০

সুনামগঞ্জ পৌর শহরেই শুধু ৫শ’র বেশী করোনা রোগী

 

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ::

সুনামগঞ্জে করোনা প্রতিরোধে মানুষের মধ্যে নেই সচেতনতা। হামেশাই মাস্ক ছাড়াই ঘুরছে মানুষ। শহর কিংবা গ্রামে একই অবস্থা। স্বাস্থ্যবিধি না মানায় বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এ পর্যন্ত জেলায় ১৭১৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তের মধ্যে আরোগ্য লাভ করেছেন ১২৩৬ জন। এবং উপজেলা ভিত্তিক আক্রান্তের মধ্যে সদর উপজেলায় রোগীর সংখ্যা বেশী। এ পর্যন্ত সদরে ৬৫৭ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। পৌর এলাকাকে চার্টে সদরে অন্তর্ভুক্তি করায় শহরে আক্রান্তের সংখ্যা বুঝা যায় নাই। তবে সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, সদরের ৬৫৭ জনের মধ্যে পৌর এলাকায় ৫শ’র বেশী রোগী রয়েছে। সদরের আক্রান্তের বেশীর ভাগই পৌর শহরে। এবং শহরে এ পর্যন্ত মৃত্যু বরণ করেছেন ৩ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ২৬১ জন। এমন পরিস্থিতিতে শংকিত হয়ে পড়েছেন পৌর বাসিন্দারা। সচেতন মহলের দাবি করোনার ছোবল থেকে শহরকে মুক্ত করতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে প্রশাসনকে আরও কঠোর হতে হবে। জানা গেছে, জেলায় গত ১২ এপ্রিল করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর কঠোর ছিল প্রশাসন। ইদানিং প্রশাসনের কঠোর নজরদারি না থাকার কারণে শহরে শত শত লোকের ভীড় ঠেলে আনাগোনা বাড়ছে। কারো মুখে , কারো পকেটে, কারো গলায় ঝুলছে মাস্ক। মাস্ক বিক্রেতারাও মুখে মাস্ক ব্যবহার করছেন না। যানবাহনে গাদাগাদি করে চলাচল করছেন চালক। সরকারি কোন নিষেধাজ্ঞা তারা মানছেন না। ফলে শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রকট আকার ধারণ করছে। এমনও খবর শুনা যাচ্ছে করোনা আক্রান্ত হয়েও অবাধে শহরে ঘুরাফেরা করছেন রোগী। কোনখানেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। শহরের নতুনপাড়ার বাসিন্দা কল্যাণ ব্রত চক্রবর্তী জানান, মহল্লায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। তবুও বাড়ছে না সচেতনতা। দিনে দুপুরে ও সন্ধ্যায় জমে উঠে আড্ডা। প্রশাসনকে পাড়ায় পাড়ায় স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর নজরদারীর দাবি জানান তিনি। সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা: সৌমিত্র চক্রবর্তী জানান, পৌর শহরের মধ্যে নতুনপাড়ায় করোনা রোগী বেশী। এই পাড়ায় দুইজন করোনা রোগী মারাও গেছেন। ২য় অবস্থানে রয়েছে ষোলঘর ও বড়পাড়া এলাকা। এছাড়া অন্যান্য পাড়ায়ও কম বেশী আক্রান্ত রয়েছেন। সিভিল সার্জন শামস উদ্দিন বলেন, সুনামগঞ্জ শহরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেশী। গত আইন-শৃংখলা সভায় বিষয়টি আমি উত্থাপন করি। এডিএম মহোদয় এর নেতৃত্বে একটি মোবাইল টিম গঠন করার কথা রয়েছে। এটি কার্যকর হলে স্বাস্থ্যবিধি মানতে লোকজন বাধ্য হবেন। এছাড়া আমাদের পক্ষ থেকে প্রচার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সিরাজুল ইসলাম শ্যামল
সুনামগঞ্জ
১২.০৮.২০২০

এই সংবাদটি 580 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ