কবিতাঃ চলো আমার গাঁয়ে

প্রকাশিত: ৮:৩৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০

কবিতাঃ চলো আমার গাঁয়ে

ছালাহ উদ্দিন আহাম্মদ
<=>=<=>=<=><=>=<=>
ছুটির দিনে বন্ধু চলো
আমার প্রিয় গাঁ,
মন মাতানো দৃশ্য যাহার
নেই যে তুলনা।

নীলা বরণ শামীয়ানায়
সবুজ রঙের মেলা,
গাছের ছায়ে হিমেল বায়ে
কাটবে সারাবেলা।

হিজল বনে বিজন মনে
বসবে কিছুক্ষণ,
চিত্ত খানা নৃত্য করে
দুলবে অনুক্ষণ।

হুগলি কুলের কাশবন
নয়ন কাড়ে বেশ,
ঝিরঝিরে শীতল বায়ে
নৃত্য করে কেশ।

পরিপাটি উজান ভাটি
নিত্য তাহার খেলা,
ঝাপটে ধরে উর্মিমালা
কলা গাছের ভেলা।

রাত দুপুরে শেয়াল ডাকে
গায় সেতারায় গান,
হনহনিয়ে ছোটে পেঁচক
ধরে রাজার ভান।

শীতের পাখি আসে উড়ে
আমার পুকুর বিলে,
সারস, ডাহুক, হাসের মেলা
বসে গাঁয়ের ঝিলে।

সকাল বেলা বড়শি ফেলে
ধরবে কাতল মাছ,
বিকেল হলে জেলের ঘেরে
দেখবে মৃগেল নাচ।

ঘাট পেরিয়ে বাঁক পেরোলে
মাঠে মাঠে ধান,
হরিষ মনে কৃষক মুখে
জারি সারি গান।

বিন্নি ধানের সুবাস আসে
কতেক খামার জুড়ে,
পাখি ধানে পাখা মেলে
চায়রে যেতে উড়ে।

ইরি, বিরি, জিরা ধানে
বসে সবুজ মেলা,
চাষি ভাইয়ের ঠোঁটের কোণে
হাসি করে খেলা।

রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে
কৃষক বারোমাস,
লাঙ্গল জোয়াল কাঁধে বয়ে
করে সোনার চাষ।

সোনা ফলা ধানের ক্ষেতে
নোলক পরা ধান,
উঠোন ভরা ধানের পারা
কিষাণীদের গান।

মাড়াই কলে ধানের মাড়াই
নতুন ধানের ঘ্রাণে,
ধানের গোলা ভরবে এবার
উথলে ওঠে প্রাণে।

ধানের কলে ধান ভাঙ্গাবো
পাবো ধানের কুড়ো
ঢেকি তো নেই চালের কলে
করবো চালের গুঁড়ো।

নুড়োর মুঠোয় জ্বলবে উনুন
ধানের কুড়োয় হেসে,
ধিকিধিকি আগুন শিখা
হাওয়ায় যাবে ভেসে।

শীতের সকাল খেজুর রসে
করবে প্রাতঃরাশ,
হরেক রকম পিঠে পায়েস
মিলবে বারোমাস।

গ্রীষ্ম কালে কাঠফাটা রোদ
মন করে আনচান,
কচি ডাবের পানি পিয়ে
ফিরবে তোমার প্রাণ।

ঠোঁট রাঙ্গাবে জামের রসে
লিচু তলায় বসে,
আতা, পেঁপের গল্প হবে
চালতা, গাবের দেশে

আম কাঁঠালে বাগান ভরা
যা মনে চায় খাও,
ছোট ফেনীর বাঁকে চল
দেখবে রঙিন নাও।

এই সংবাদটি 55 বার পঠিত হয়েছে