অপ্রিয় হলেও সত্য প্রবাসীদের জীবনের বাস্তব চিত্র। ——————————————

প্রকাশিত: ৫:২৫ পূর্বাহ্ণ, জুন ২০, ২০২০

রফিকুল ইসলাম মামুন, সিলেট সদর উপজেলা প্রতিনিধি।

যারা পরিবারকে একটু সুখ শান্তিতে রাখতে নিজেদের সবকিছু বিসর্জন দিয়ে সুদূর প্রবাসে পাড়ি দিয়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে টাকা পয়সা রুজি রুজগার করছেন এটা ভালো, কিন্তু দেশে তোমার পরিবার পরিজন কি করছে সে খবরটা কতটুকু রাখতে পারছেন।
প্রবাস জীবন কারো জন্যই সুখের নয় একটু সুখের আশায় শান্তির প্রত্যাশায় নিজের দেশ পরিবার পরিজন আত্মীয়স্বজন রেখে মাথার ঘাম পায়ে ঝরিয়ে দিনরাত অবিশ্রাম পরিশ্রম করে থাকেন।
দুঃখজনক হলেও সত্য সবার বেলায় না হলেও অনেকের বেলায় দেখা যায় পিতা-মাতাকে ভুলে গিয়ে স্বীয় স্ত্রীর কথায় চলাফেরা করে থাকেন, এবং ঘাম ঝরানো টাকা গুলো স্ত্রীর নামে বিভিন্ন পন্থায় পাঠিয়ে থাকেন মা-বাবা এতিমের মত চেয়ে চেয়ে তা দেখেন।
স্বামীর হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমের টাকা নিয়ে স্ত্রী এবং তার ভাই বোনেরা সানগ্লাস চোখে পরে বয়ফ্রেন্ড গালফ্রেন্ড নিয়ে মার্কেটিং করছেন, পার্কে গিয়ে আড্ডা দিয়ে ফুর্তি করছেন, শাড়ি, ঘড়ি, শার্ট, প্যান্ট, বাহারি রংয়ের জামা কাপড় একটার জায়গায় তিনটা কিনছেন, স্ত্রী শাশুড় শাশুড়িকে কিছু না দিয়ে নিজের মা-বাবাকে নিত্যনতুন জামা কাপড় একটার পর একটা কিনে দিচ্ছেন।
সামাজিক প্রথা ইফতারি, আম, কাঠাল, আনারস, স্বন্দেশ, টিফিন বক্স, বাহারি রকমের মিষ্টি, মাষ্টা, জামাইয়ের টাকা দিয়ে শাশুড় বাড়ির লোকেরা গাড়ি ভরে নিয়ে আসেন, তা ও মা-বাবার কপালে জুটেনা, বউ বলেন এটা আমার বাবার বাড়ি থেকে এসেছে সবাইকে দেয়ার পর যদি থাকে তাহলে আপনাদের দিবো।
যে পিতা-মাতা অনেক কষ্ট করে আমাদেরকে বড় করেছেন নিজেরা উপবাস থেকে আমাদের খানাপিনা করিয়ে মানুষ করেছেন, প্রচণ্ড শীতের রাতে আমাদের জন্য কতইনা কষ্ট সহ্য করেছেন, আজ আমরা একজন স্ত্রী পেয়ে কি করে কেমন করে তাদের ভুলে যাই, ভুলে, রই হ্যাঁ আমরা আমাদের স্ত্রীদের অবশ্যই স্নেহ মমতায় ভালবাসায় জড়িয়ে নিতাম, তাদের অধিকার দিতাম, তবে মা-বাবার চাইতে বেশি নয় সেটা অবশ্যই মনে রাখতে হবে।
আমাদের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমের টাকা গুলো কি কাজে লাগছে সে খবর রাখা দরকার এবং আমাদের ভাইবোন সঠিক পথে চলছে কিনা সে বিষয়ে খবরা খবর রাখাটা অত্যন্ত জরুরী, শুধু টাকা কামিয়ে কি লাভ যদি মান সম্মান না থাকে তাই প্রবাসী ভাইদের প্রতি সবিনয়পূর্বক আহবান করছি নিজের পরিবার পরিজনের সঠিক খবরাখবর রাখেন, সময় সুযোগে দেশে এসে কিছুদিন অতিবাহিত করে যান তাতে সবদিক দিয়ে আপনার ও আপনার পরিবারের জন্য মঙ্গল হবে।
আপনাদের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমের টাকা গুলি যেনো সঠিক কাজে লাগে সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি, স্ত্রীগণ যাতে বিনা কারণে ঘরের বাহির না হন, আড্ডায় লিপ্ত না হোন সেই ধরনের আদেশ প্রদান করতে হবে।
পরিশেষে প্রবাসীদের জীবনের সার্বিক মঙ্গল কামনা করছি, আপনারা ভাল থাকেন, সুস্থতার সহিত এটাই প্রত্যাশা, আল্লাহ হাফেজ। ২০-০৬-২০ ইংরেজি।

এই সংবাদটি 216 বার পঠিত হয়েছে